সর্বশেষ সংবাদ

গাইবান্ধার গ্রাম পুলিশরা মানবেতর জীবন-যাপন করছেন(সহ গাইবান্ধার আরও ৬টি সংবাদ)


গাইবান্ধা ,ফারুক হোসেন: ২৪ ঘন্টা গ্রামীণপর্যায়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাসহ বিভিন্ন সামাজিক সচেতনতা ও সরকারের উন্নয়নে অবদান রাখলেও ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটেনি গ্রাম পুলিশদের। যখনই ইউনিয়নের কোথাও সমস্যা দেখা দেয় তখনি ছুটে যেতে হয় তাদের। কাজ হিসেবে পর্যাপ্ত বেতন ভাতাদিসহ অন্যান্য কোন সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন না তারা। ফলে স্বল্প বেতনে গ্রাম পুলিশরা পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন।
গাইবান্ধা গ্রাম পুলিশ কর্মচারি ইউনিয়ন সুত্রে জানা গেছে, প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদে গ্রাম পুলিশ থাকেন ১০ জন করে। এদের মধ্যে দফাদার পদে থাকেন একজন ও নয়জন থাকেন মহল্লাদার। বর্তমানে দফাদাররা মাসিক তিন হাজার ৪০০ টাকা ও মহল্লাদাররা তিন হাজার টাকা করে বেতন পাচ্ছেন। এই বেতনের অর্ধেক দিচ্ছে সরকার ও অর্ধেক দিচ্ছে ইউনিয়ন পরিষদ। ঈদ ও পূজায় বোনাস ছাড়া চাকরিকালীন সময়ে এর বাহিরে আর কোন অর্থ বা কোন সহযোগিতা পান না গ্রাম পুলিশরা। ফলে এই সামান্য বেতনে কষ্ট করে সংসার চালাতে হচ্ছে জেলার ৮২০ জন গ্রাম পুলিশকে। গত বছরের শেষের দিক থেকে অবসরপ্রাপ্ত দফাদাররা এককালীন ৬০ হাজার টাকা ও মহল্লাদাররা ৫০ হাজার টাকা করে পাচ্ছেন।
সুত্রটি আরও জানায়, ইউপি সচিবকে জন্ম-মৃত্যুর তথ্য সংগ্রহ করে প্রদান করা, ইউপি ভবন ও বিভিন্ন সড়কে রাত্রিকালীন ডিউটি, গ্রাম আদালত, গ্রামে কোন সংস্থার কর্মসূচি চলাকালীন ও সড়ক দুর্ঘটনার স্থানে তাৎক্ষণিক দায়িত্ব পালন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বাল্যবিয়ে আয়োজনের তথ্য প্রদান, কোন অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর সংবাদ থানায় জানানো, মাদকদ্রব্য ও জুয়া প্রতিরোধে অভিযান চালনা, ট্রেন ও যানবাহনের চলাচল স্বাভাবিক রাখতে বিভিন্ন সময়ে রেললাইন ও সড়ক পাহারা দেওয়া, নির্বাচনকালীন, বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান ও ছিনতাইপ্রবন এলাকায় দায়িত্ব পালন এবং মানুষদের মধ্যে সংঘর্ষ রোধে ভূমিকা রাখাসহ আরও অনেক কাজে গ্রাম পুলিশদের দায়িত্ব পালন করতে হয়।
সাঘাটা উপজেলার পদুমশহর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ হিরালাল রবিদাস বলেন, তিন ছেলে-মেয়ের পড়ালেখার খরচ যোগাতে গিয়ে আমাদের খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাতে হচ্ছে। শুধু ঈদ ও পূজা ছাড়া আমাদের আর নেই কোন বোনাস। ফলে স্ত্রী-সন্তানদের অনেক আশাই অপূর্ণ থাকছে। সাদুল্লাপুর উপজেলার কামারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ রফিকুল ইসলাম রবি বলেন, সরকারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজের তথ্য সংগ্রহ করে প্রদান করাসহ গ্রামে গ্রামে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় অবদান রাখলেও আমাদের দিকে দেখার কেউ নেই। আমরা যে টাকা বেতন পাই তা দিয়ে সংসারই চলে না। আজকের দিনে এই তিন হাজার টাকা দিয়ে কিছুই হয়না।
বাংলাদেশ গ্রাম পুলিশ কর্মচারি ইউনিয়ন গাইবান্ধা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান বলেন, কোথায় কখন কি ঘটে এটা ভেবে আমরা বাড়ী ফিরেও শান্তিতে ঘুমাতে পারি না। কোথাও কোন সমস্যা হলে সঙ্গে সঙ্গেই ছুটতে হয়। বলা চলে ২৪ ঘন্টাই আমাদের দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। এতো সেবা দেওয়ার পরও আমাদের বেতন অতি সামান্য। তাই আমাদের পরিবার-পরিজনের কথা চিন্তা করে সরকারি চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারির ন্যায় সমস্কেল প্রদান, রেশন ব্যবস্থা চালু ও চাকরিকালীন সময়ে কেউ মারা গেলে তার পরিবারকেও একাকালীন টাকা দেওয়ার দাবি জানান এই গ্রাম পুলিশ নেতা।

গোবিন্দগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড বসতবাড়ী ভূস্মিভুত: বিপুল পরিমান ক্ষয়ক্ষতি

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের অভিরামপুর গ্রামে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে পাঁচ ভাইয়ের ৫টি বসতবাড়ী সম্পন্ন ভূষ্মিভুত হয়েছে। এতে বাড়ির ১০ ঘর ও আসবাবপত্র সহ সমস্ত মালামাল এবং নগদ টাকা আগুনে পুড়ে যায়।
আজ মঙ্গলবার দুপুরে মোস্তা মিয়ার বাড়ীর বিদ্যুতের শর্ট সার্কিটি থেকে অগ্নিকান্ডে সূত্রপাত ঘটে। মুহুর্তে তা আশেপারে ঘরবাড়ীতে ছড়িয়ে পড়ে। এতে মোস্তার আপর চার ভাই নজরুল মিয়ার,মিজানুর,লতিফ ও মমিন মিয়ার বাড়ী আগুনে পুড়ে ভূষ্মিভুত হয়। আগুনে মোস্তার নগদ ৩ লক্ষ ৭০ হাজার ও লতিফ মিয়ার ৩৮ হাজার টাকা পড়ে গেছে। পরে এলাকাবাসী ও গাইবান্ধা ফায়ার সার্ভিস দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে অগ্নিকান্ডে কোন ব্যক্তির হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। গাইবান্ধা ফায়ার সার্ভিস জানায়,অগ্নিকান্ডে প্রায় ৯ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে।
দরবস্ত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ.র.ম শরিফুল ইসলাম জর্জ অগ্নিকান্ডের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম জানান,বিকেলে অগ্নিকান্ডে পুড়ে ৫টি বাড়ীর ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে চাল,ডাল সহ নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী প্রদান করেন। পরবর্তীতে ক্ষতি সরকারীভাবে আর্থিক সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস প্রদান কনের।

গাইবান্ধার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে লিটন মিয়া নির্বাচিত

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ও ফজলুপুর ইউনিয়নের নির্বাচন গতকাল মঙ্গলবার শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের বেসরকারি ফলাফলে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী লিটন মিয়া (চশমা) ৫ হাজার ২৫০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রার্থী আওয়ামী লীগের অপর বিদ্রোহী প্রার্থী আজাহারুল ইসলাম ভোট পেয়েছেন ৩ হাজার ৮৬০। এছাড়া ফজলুপুর ইউনিয়নের ভোট গণনা চলছিল।

গোবিন্দগঞ্জ গলদা কার্প মিশ্র আরডি প্রদর্শনী ও মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ মৎস্য অধিদপ্তর ইউনিয়ন পর্যায়ে মৎস্য চাষ প্রযুক্তি সেবা সম্প্রসারন প্রকল্প ২য় পর্যায়ের আওতায় গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে কামারদহ ইউনিয়নের মোগলটুলিতে মাঠ দিবস ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
আজ মঙ্গলবার দুপুরে এ মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি বক্তব্য রাখেন,জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো.আব্দুদ দাইয়ান। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা প্রদিপ কুমার সরকার, উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন, উপজেলা খামার ব্যবস্থাপক আলতাফ হোসেন চৌধুরী, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই তালুকদার,মৎস্য চাষী সহিদুল ইসলাম মিলনসহ মৎস্যচাষী ও বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

গাইবান্ধায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধে ভাইয়ের হাতে বিএনপি নেতা খুন

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধা সদর উপজেলার বাদিয়াখালী ইউনিয়নের রামনাথের ভিটা গ্রামে বিরোধপূর্ণ জমির ধান কাটাকে কেন্দ্র করে গতকাল মঙ্গলবার চাচাত ভাইয়ের হাতে আশরাফুল আলম শাহীন (৪৫) নামে স্থানীয় এক বিএনপি নেতা নিহত হয়েছেন। বাদিয়াখালী ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি আশরাফুল আলম ওই গ্রামের আবুল মুনছুরের ছেলে। পুলিশ ও গ্রামবাসি জানায়, বাড়ির পার্শ্ববর্তী এক খন্ড জমি নিয়ে আপন চাচাত ভাই জাহাঙ্গীর আলম (৪০) এর সাথে আশরাফুল আলম শাহীনের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। মঙ্গলবার ভোরে বিরোধপূর্ণ ওই জমির ধান কাটতে যান জাহাঙ্গীর আলম। তা টের পেয়ে আশরাফুল আলম বাধা দিতে যান। এরফলে উভয়ের মধ্যে তর্কবিতর্কের একপর্যায়ে লাঠিসোটা নিয়ে আশরাফুল আলমের উপর হামলা চালায় জাহাঙ্গীর আলমসহ তার লোকজন। এতে আশরাফুল আলম শাহীন মাথায় আঘাত পেয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান এবং তার সহযোগি রতন মিয়া গুরুতর আহত হন। আহত রতনকে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জাহাঙ্গীর আলম ওই গ্রামের মৃত জিয়াউর রহমানের ছেলে।

গাইবান্ধায় শিবিরের সাবেক সভাপতি গ্রেফতার

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধা থানা শিবিরের সাবেক সভাপতি আলমগীর হোসেন (৩১)কে গ্রেফতার করেছে সদর থানা পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে সদর উপজেলার সাহাপাড়া ইউনিয়নের ভজনের খামার গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সে ওই গ্রামের কলিম উদ্দিনের ছেলে। গাইবান্ধা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মোঃ শাহারিয়ার জানান, আলমগীর হোসেন সদর উপজেলার রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের বড় দুর্গাপুর গ্রামের দাখিল মাদ্রাসার সুপার। তার বিরুদ্ধে নাশকতা মামলাসহ ৮টি মামলা রয়েছে।
মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষা -পঁচা-বাসী ও রং মিশ্রিত ভেজাল খাবার প্রস্তুত-বিক্রি বন্ধে

গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভায় মতবিনিময় সভা অনুষষ্ঠিত

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভায় মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষা -পঁচা-বাসী ও রং মিশ্রিত খাবার প্রস্তুত-বিক্রি বন্ধ সহ ভেজাল মুক্ত পরিবেশ নিশ্চিতকরণে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পৌর মিলনায়তনে মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আতাউর রহমান সরকারের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, পৌর কাউন্সিলার শাহিন আকন্দ, রিমন কুমার তালুকার, আমির হোসেন সোনা, মোখলেছুর রহমান, জোবাইদুর রহমান বিশা, আনিছুর রহমান শিবলু, ফারুক হোসেন, গোলাপী বেগম, শিল্পী, মারুফা বেগম, গোবিন্দগঞ্জ মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক ফিরোজখানুন, ব্যবসয়ী আবু বক্কর সিদ্দিক, সেনেটারী ইন্সেপেক্টর মিলন গুন, মামুন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Powered by Dragonballsuper Youtube Download animeshow