সর্বশেষ সংবাদ

খালেদা জিয়া রোজার আগেই মুক্তি পেতে পারেন

 

এশিয়ানবার্তা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের সাজা মাথায় নিয়ে গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এরপর অসুস্থতার কথা বলে তার আইনজীবীরা বার বার জামিন আবেদন করলেও মেলেনি। বরং সচল হয়েছে আরও কয়েকটি মামলার কার্যক্রম।

চিকিৎসার জন্য একবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছুদিন ভর্তি ছিলেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। জানা গেছে, সম্প্রতি আবারও একই হাসপাতালে ভর্তির বিষয়ে প্রস্তাব দিলে তিনি তাতে রাজি হননি। তিনি চান তার পছন্দমত হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে।

তবে আইনজ্ঞরা মনে করেন, খালেদা জিয়ার কারাগারে থাকার বিষয়টি রাজনৈতিক। নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার জন্যই হয়তো তার মুক্তি ঠেকিয়ে রাখা হয়। এখন কেবল সরকার চাইলে তার মুক্তি মিলতে পারে। সরকার গঠন হয়ে যাওয়ায় আগামী রমজানের আগেই হয়তো তার মুক্তি মিলবে, এমনটা মনে করছেন আইনজীবীরা।

জানতে চাইলে খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের অন্যতম সদস্য, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, মুক্তির বিষয়টি সরকারের সদিচ্ছার ওপর নির্ভর করছে। আমরা একটায় জামিন নেবো, সরকার এর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে যাবে, আবার নতুন মামলা দিবে। তাদের কাজই হলো সময়ক্ষেপণ করা।

তিনি বলেন, আমরা মনে করি তার শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় সরকার নিজ দায়িত্বে মামলাগুলো মূলতবি রেখে চিকিৎসার সুযোগ করে দেবে। যে মামলা আছে তা সাতদিনের মধ্যে শেষ করা যায়, কেবল সদিচ্ছা দরকার। খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি আদালত নয়, সরকারের সদিচ্ছার ওপর নির্ভর করছে।

খন্দকার মাহবুব বলেন, খালেদা জিয়াকে যে অবস্থায় কোর্টে হাজির করা হয় তা অমানবিক। সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রীকে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করে দিন দিন মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। তবে সরকার নমনীয় হলে রমজানের আগে মুক্তি সম্ভব বলে মনে করেন এই সিনিয়র আইনজীবী।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, সরকারতো বিভিন্নভাবে শ্যোন অ্যারেস্ট দেখায়। তাদের ওপরতো আমাদের হাত নেই। সরকারের সদিচ্ছা থাকলে বেগম জিয়া অনেক আগেই বেরিয়ে আসতেন।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া খুবই অসুস্থ। এখন কোর্টে অবকাশ চলছে। অবকাশের পর আমরা জামিনের বিষয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো। জামিন আবেদনে অসুস্থতার বিষয়টি আমরা উল্লেখ করবো। তবে খালেদা জিয়ার বিষয়ে সরকারেরতো হাত আছেই। তারপরও রমজানের আগেই তার মুক্তির বিষয়ে চেষ্টা করা হবে বলে জানান জয়নুল আবেদীন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কারাবন্দি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ৩৬টি মামলা রয়েছে। এরমধ্যে এক এগারোর তত্ত¡াবধায়ক সরকার আমলে ৪টি এবং আওয়ামী লীগ সরকারের গত দশ বছরে দায়ের হয় ৩২টি মামলা। তবে কয়েকটি ছাড়া সব মামলাতেই জামিনে রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

এখন মুক্তির জন্য জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় জামিন নিতে হবে খালেদা জিয়াকে। অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিচারিক আদালত খালেদা জিয়াকে ৫ বছর সাজা দিয়েছিলেন। তবে হাইকোর্টে খালাস চেয়ে আবেদন করলে তার সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করা হয়। এরপর হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করা হয়, সেইসঙ্গে জামিনও চাওয়া হয় এ মামলায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Powered by Dragonballsuper Youtube Download animeshow