সর্বশেষ সংবাদ

এবারের বইমেলায় কালাচাঁদ মৃত্যুু’র প্রথম কাব্যগ্রন্থ “চেতনার বাণ”

কোটালীপাড়া থেকে সুজিৎ মৃধা :

এবারের বইমেলায় কালাচাঁদ মৃত্যু’র প্রথম কাব্যগ্রন্থ  “চেতনার বাণ” । শিক্ষকতার পাশাপাশি তিনি লেখালেখি ও করেন। ২০১৯ সালের বই মেলায় তার প্রথম কাব্যে তিনি সনেট কবিতার উপর চালিয়েছেন নানাবিধ পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও গবেষণা।
উদ্ভাবন করেছেন অভিনব পঞ্চবৃত্তীয় বর্ণক্রম-প্রাস্বরিক ম্রৈত্যুয়িকী ছন্দ। বিস্ময়কর এ ছন্দের একটি কবিতায় মিতিপ্রধান ভঙ্গিতে প্রচলিত তিন ছন্দের সাথে সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত উদ্ভাবিত “প্রাস্বরিক” ছন্দ ও কালাচাঁদ মৃত্যুর “বর্ণক্রম-প্রাস্বরিক ম্রৈত্যুয়িকী” ছন্দসহ সর্বমোট পাঁচটি ছন্দ পাওয়া যাবে।
এ ছন্দ উদ্ভাবনের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি “নজরুল স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার-২০১৯” লাভ করেন। যুগস্রষ্টা কবি কালাচাঁদ মৃত্যু’র “চেতনার বাণ” কাব্য, বাংলা সাহিত্যের এক নতুন দ্বার উন্মোচন করেছে।
গ্রন্থটি অমর একুশে বইমেলা -২০১৯ উপলক্ষে প্রকাশ করেছে সিদ্দিকীয়া পাবলিকেশন্স। স্টল নম্বর: ৫৪৩-৫৪৪।
তিনি প্রচলিত তিন ছন্দের নামকরণকে যুক্তির মাধ্যমে ভুল প্রমাণ করে বিজ্ঞানভিত্তিক নামকরণ করেছেন। স্বরবৃত্তকে “শ্রুত্যাক্ষরবৃত্ত”, অক্ষরবৃত্তকে “দৃশ্যাক্ষরবৃত্ত” ও মাত্রাবৃত্তকে “বর্ণবৃত্ত” ছন্দ নামে অভিহিত করেন তিনি। তাঁর যুক্তি: ১। অক্ষরবৃত্ত ছন্দে প্রতিটি অক্ষরকে মাত্রা ধরা হয় না কিন্তু ব্যতিক্রমে প্রতিটি দৃশ্যাক্ষরকে একমাত্রা ধরা হয়। তাই এর নাম “অক্ষরবৃত্ত” হতেই পারে না— এর নাম “দৃশ্যাক্ষরবৃত্ত”। ২। “মাত্রাবৃত্ত” শব্দের অর্থ “মাত্রা দ্বারা আবৃত্ত”। সব ছন্দই ভিন্নরূপ এককের মাত্রা দ্বারাই আবৃত্ত।
একটিমাত্র ছন্দের নাম “মাত্রাবৃত্ত” হতে পারে না। “মাত্রাবৃত্ত” শব্দের অর্থবিচারে একটিমাত্র ছন্দকে না বুঝিয়ে সবছন্দকেই বোঝায়। কিন্তু গবেষণায় পাই— এ ছন্দে প্রতিটি স্বরযুক্ত বা স্বরমুক্তবর্ণ এক মাত্রা গণ্য। তাই এর বিজ্ঞানসম্মত নাম “বর্ণবৃত্ত” রাখা হলো।
৩। প্রতিটি শ্রুত্যাক্ষর অর্থাৎ প্রতিটি মুক্তাক্ষর ও বদ্ধাক্ষরকে এক মাত্রা ধরা হয় বলেই, “স্বরবৃত্ত” ছন্দের বিজ্ঞানভিত্তিক নাম “শ্রুত্যাক্ষরবৃত্ত”।
এ গ্রন্থে তাঁর উদ্ভাবিত “চন্দ্রৌনিশি”, “ত্রিপঞ্চকী”, ষটষ্টাদশী”, “পরিবেষ্টন মিত্রাক্ষর” ধারার বেশকিছু কবিতা ও নানা ধরনের সনেট স্থান পেয়েছে। স্বদেশ প্রেম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, বাংলার চিরায়ত ইতিহাস-ঐতিহ্য, স্মৃতিময় অতীত-বেদনা— এ কাব্যের বিষয় বস্তু। “কবিপ্রজন্মের পথিকৃৎ” নামে খ্যাত কবি কালাচাঁদ মৃত্যু’র কাব্যরীতি ও উদ্ভাবিত ছন্দ বাংলাদেশ-ভারতের একটি বিশাল অংশের অনলাইনভিত্তিক কবিসমাজ অনুসরণ করে থাকেন।
ছন্দগবেষক কালাচাঁদ মৃত্যু সারা বিশ্বের প্রচলিত, অপ্রচলিত প্রায় ছন্দকে সংগ্রহ করে সংস্থাপন করেছেন বাংলা কবিতায়। ভারত-বাংলাদেশের বহু পত্র-পত্রিকায় তাঁকে “ছন্দসম্রাট” উপাধিতে ভূষিত করে— তাঁর উদ্ভাবিত ছন্দের উপর গবেষণামূলক প্রবন্ধ ছাপা হয়েছে।
এই ছন্দগবেষক কবি গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া উপজেলার পশ্চিমপাড় গ্রামে ১৬ ডিসেম্বর, ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক নামে বর্তমানে কাজী মন্টু কলেজ, কোটালিপাড়ায় অনার্স শাখার বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান পদে কর্তব্যরত আছেন। “চেতনার বাণ” কাব্যের মনে রাখার মত একটি উক্তি “মৃত্যু, জীবনের পাশাপাশি চলতে থাকা একটি গতির নাম। জীবন, এক সময় মৃত্যুর কাছে আত্মসমর্পণ করেবে অথচ মৃত্যু অনন্ত-অক্ষয়; জগদ্ ধ্বংস-কাল পর্যন্ত চির জাগ্রত সত্তা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Powered by Dragonballsuper Youtube Download animeshow