সর্বশেষ সংবাদ

হিপনোটাইজ,শিখে নিন মানুষের মন জয় করার মহামন্ত্র

ফকীর শাহ < এশিয়ানবার্তা ডেস্ক > সবচেয়ে কঠিণ কাজ হচ্ছে মানুষের মন জয় করা । ঘরসংসার থেকে শুরু করে রাষ্ট্রীয় কারবার এবং আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলেও মানুষের মন জয় করাটাই হচ্ছে মেইন ফ্যাক্টর । মানুষের মন জয় করার কৌশলটা তাই পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা আর্ট বা শিল্প হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে সৃষ্টির শুরু থেকে এখন পর্যন্ত। আদিতে এটি আর্ট হিসেবে গণ্য হলেও এখন মানুষের মন জয় করার প্রাচীন সেই আর্ট আর আর্ট হিসেবে টিকে থাকতে পারেনি। এখন সেটি বিজ্ঞানে রুপ নিয়েছে।  হিপনোটাইজ বা মানুষকে বশ করে মানুষের মন জয় করার সেই বিজ্ঞান এখন আবার একুশ শতকে এসে টেকনোলজিতে রুপ নিয়েছে।

যাদুটোনা করে মানুষকে বশ করার চেষ্টা চলে এসেছে অনেক প্রাচীনকাল থেকেই। পরিবার থেকে সমাজ এমনকি রাস্ট্র পর্যন্ত মানুষকে বশ করার কায়দা কৌশল চর্চা করতে দেখা যায় একবিংশ শতাব্দীর এই চরম বৈজ্ঞানিক ও প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগেও।

তবে এখন আর যাদুটোনায় মানুষকে বশ করা যায় না। এখনকার মানুষ এতটাই যান্ত্রিক যে যাদুটোনা সহজে কাবু করতে পারে না মানুষকে। তই মানুষকে বশ করতে হলে এখন প্রযুক্তিই মোক্ষম মন্ত্র। তাই এখন মানুষকে বশ করতে হলে জানা চাই প্রযুক্তি।

যুক্তি আর কুযুক্তি মিলে হয় প্রযুক্তি। সেই প্রযুক্তি দিয়েই মানুষের মন জয় করার কৌশলের যুগে এসে পড়েছি আমরা। তারপরও প্রাচীন সেই আর্ট বাতিল হয়ে যায়নি এখনো।

মানুষের মন জয় করার ইচ্ছা সব মানুষেরই আছে। তাই মানুষের মন জয় করার মন্ত্র জানতে চান সবাই । মানুষকে নিজের বশে রাখার এই মানবিক বাসনা আজ নতুন নয়। পৃথিবীতে মানুষের আগমনের দিন থেকেই এক মানুষ আরেক মানুষকে নিজের বেশে রাখার কৌশল আয়ত্ব করে এসেছে। ব্যাক্তি থেকে রাষ্ট্র পর্যন্ত এই মানুষের মন জয় করার এই চর্চা চলে আসছে হাজার বছর ধরে।

আজ থেকে প্রায় আড়াই হাজার বছর আগে কৌটিল্য বলে গেছেন,অধমেরা ধন চায়, মধ্যমেরা ধন ও মান চায়। আর উত্তমেরা শুধু মান চায়। মানই মহতের ধন।

সেই কৌটিল্যকে আজও গুরু মানে ভারত। কৌটিল্যের নীতি অনুসরন করে নিজেদের প্রভাব বলয় বাড়াতে সক্ষমও হয়েছেন ভারতের কুটনীতিকরা।

সেই কৌটিল্য বা চাণক্য মানুষকে বশ করার কিছু কৌশলের কথা বলে গেছেন।আপনিও সেগুলো প্রয়োগ করে দেখত পারেন। মানুষ কীভাবে আপনার বশ মানতে শুরু করে।

হিপনোটাইজ৷ এই কথাটির সঙ্গে আমরা সকলেই কমবেশি পরিচিত৷ কিন্তু কাউকে হিপনোটাইজ করা বা নিজের বশে রাখা একেবারেই সহজ কাজ নয়৷ প্রত্যেকেই চায় সমাজে নিজের কর্তৃত্ব ফলাতে৷কেউ কারো বশে থাকতে চায় না।

একইসঙ্গে সকলেই চায় প্রত্যেককে নিজেদের অধীনে রাখতে৷ কিন্তু এই বিষয়টি একেবারেই সহজ নয়৷ কিন্তু কূটনীতি শাস্ত্রের অন্যতম স্তম্ভ চাণক্য তাঁর নীতিতে কোনও মহিলা বা পুরুষকে কিভাবে নিজের বশে রাখা যাবে সেই বিষয়ে বিশদ বর্নণা দিয়েছেন৷

চাণক্যর নীতিতেই রয়েছে কিভাবে অন্য পুরুষ কিংবা মহিলাকে নিজের বশে রাখবেন আপনি? চাণক্যের মতে, আমাদের চারপাশে রয়েছে বিভিন্ন স্বভাবের বিভিন্ন মানুষ৷ এদের মধ্যে কেউ রয়েছেন ধনী, কেউ অহংকারী, কেউ আবার বোকা আবার কেউ রয়েছেন খুবই বুদ্ধিবান কিংবা বুদ্ধিমতী৷ চাণক্য নীতি অনুযায়ী জেনে নিন কিভাবে অন্যকে নিজের বশে রাখবেন-

১) সমাজে গরীব যারা তাদেরকে যদি টাকা দেওয়া যায়, তারা সবসময়ই থাকবে আপনার নিয়ন্ত্রনে৷
২) যারা খুব অহংকারি ব্যক্তি তাদের সঙ্গে নম্র ভদ্রভাবে ব্যবহার করুন৷ দেখবেন সে আপনার একেবারে বশে চলে আসবে৷

৩) যারা খুব বোকা, তাদেরকে নিয়ন্ত্রন করা খুবই সহজ৷ শুধু তার বিশ্বাস অর্জন করতে হবে৷ যদি আপনি তার মতামত মেনে চলেন তাহলে দেখবেন আপনি তার কাছে বিশ্বাসের পাত্র বা পাত্রী হয়ে উঠবেন৷
৪) কোনও বোকা ব্যক্তিকে মিথ্যে প্রশংসা করলে সে থাকবে আপনার নিয়ন্ত্রনে৷
৫) কোনও বুদ্ধিমান ব্যক্তির বিশ্বাস অর্জন করতে হলে অবশ্যই তার সামনে সত্যি কথা বলুন৷

মানুষকে হিপনোটাইজ করার এই প্রাচীন কৌটিল্য নীতির সঙ্গে যদি আধুনিক প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটাতে পারেন,তবেই আপনি সফল হতে পারবেন আরেকজনক বশে রাখতে। রাষ্ট্রের বেলাও তাই।

এক রাষ্ট্র আরেক রাষ্ট্রকে বশে রাখার জন্য এই কৌটিল্য নীতি আর প্রযুক্তি যারা যতটা সফল ভাবে কাজে লাগাতে পারবে তারাই ততটাই সফলকাম হবে।

তবে আজ পর্যন্ত এসব তন্ত্র মন্ত্র আর প্রযুক্তি কোনটাই মানুষের মন জয় করার মোক্ষম কোন মন্ত্র দেখাতে পারেনি। বলা যায় সবটাই ব্যার্থ হয়েছে।মানুষের মন জয় করা সহজ হচ্চে না।

তাহলে কোথায় পাওয়া যাবে মানুষের মন জয় করার সত্যিকারের মহামন্ত্র।

মানুষের মন জয় করার সবচেয়ে নিঁখুত এবং টেকসই মহামন্ত্র আছে আল কুরআনে। মানুষের স্রস্টা সেখানে পরিপূর্ণভাবে শিখিয়েছেন কীভাবে মানুষের মন জয় করতে হয়।

সব কথার শেষ কথা হচ্ছে, মানুষের মন জয় করার মহামন্ত্র একমাত্র কুরআনেই আছে। যদি সত্যি সত্যি কার্যকরভাবেই মানুষের মন জয় করতে চান তাহলে ফলো করুন আল কুরআন। পৃথিবীর আর কোন যাদুটোনা কিংবা প্রযুক্তিই মানুষের মন জয় করতে ততটা সফল নয় যতটা সম্ভব আল কুরআন মেনে চললে  ।

একমাত্র মানুষের স্রষ্টাই ভাল জানেন কিসে মানুষের মন জয় করা যায় । কাজেই, আল কুরআনে অনুসন্ধান করুন মানুষের মন জয় করার সবচেয়ে কার্যকর এবং মনো-বৈজ্ঞানিক মহামন্ত্র ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Powered by Dragonballsuper Youtube Download animeshow